Indonesia Floods: ইন্দোনেশিয়ায় বন্যা বিপর্যয়! ঠান্ডা লাভা প্রবাহের কারণে মৃত ৫০, উদ্ধারকার্য চলছে

ইন্দোনেশিয়ায় আকস্মিক বন্যায় নেমে এসেছে অকাল বিপর্যয়। প্রবল বর্ষণের পর অনেক এলাকায় এই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। আগ্নেয়গিরির ঢাল থেকে নেমে আসা শীতল লাভা প্রবাহের কারণে ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি করেছে। অন্তত ৫২ জনেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন এবং অনেকেই এখনও নিখোঁজ হয়েছেন।

  • শীতল লাভা কী

শীতল লাভা হল আগ্নেয়গিরির উপাদান এবং ধ্বংসাবশেষের মিশ্রণ যেমন যেমন ছাই, বালি এবং নুড়ি, যা বৃষ্টিতে আগ্নেয়গিরির ঢাল বেয়ে প্রবাহিত হয়।

  • কমপক্ষে ৫২ জন মারা গিয়েছেন

উদ্ধারকারী কর্মকর্তাদের মতে, পশ্চিম ইন্দোনেশিয়ার একটি আগ্নেয়গিরি থেকে আকস্মিক বন্যা ও ঠান্ডা লাভা নির্গত হওয়ার পর বেশ কয়েকজন শিশুসহ অন্তত ৫২ জন মারা গিয়েছেন এবং আরও অনেকে নিখোঁজ রয়েছে।

  • নিখোঁজ ২৭ জন

নিখোঁজদের সন্ধানে এবং লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিতে কর্তৃপক্ষ উদ্ধারকারী দল ও রাবার বোট পাঠিয়েছে। সরকার বর্ষাকালে ভূমিধস এবং বন্যার প্রবণতা উভয় জেলায় বিভিন্ন স্থানে ইভাকুয়েশন সেন্টার এবং জরুরি চেকপয়েন্ট স্থাপন করেছে। এখনও পর্যন্ত ২৭ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

  • ক্ষয়ক্ষতির খতিয়ান

ন্যাশনাল ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট এজেন্সির মুখপাত্র আবদুল মুহারি বলেছেন, মৌসুমী বৃষ্টি এবং মাউন্ট মারাপির শীতল লাভার কারণে এই বিপর্যয় বর্তমান। ঘোলা জলের কারণে ভূমিধস হয়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে শনিবার মধ্যরাতে একটি নদী উপচে পড়েছিল। অতি বৃদ্ধির কারণে পশ্চিম সুমাত্রা প্রদেশের চারটি জেলার বহু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, বন্যায় বহু মানুষ ভেসে গিয়েছেন এবং শতাধিক বাড়ি-ঘর তলিয়ে গিয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির মূল্যায়নে আরও দেখা গিয়েছে মসজিদ, বাসস্থান এবং জনসাধারণের অবকাঠামো বিপর্যয়ের কারণে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। তানাহ দাতারে, লেম্বা আনাই নামের একটি পর্যটন কেন্দ্র মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন করেছে, পাদাং এবং বুকিটিংগির মধ্যের প্রবেশপথ বন্ধ করে দিয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্ষাকালে ভূমিধস এবং বন্যার জন্য ইন্দোনেশিয়ার ক্ষতি সুপরিচিত। মার্চ মাসে, পশ্চিম সুমাত্রা একই ধরনের ট্র্যাজেডির মুখোমুখি হয়েছিল, অন্তত ২৬ জন প্রাণ হারিয়েছিলেন। উপরন্তু, পরিবেশবাদীরা বন্যার বিরুদ্ধে গাছের প্রতিরক্ষামূলক ভূমিকার উপর জোর দিয়ে, এই বন্যার জন্য মূলত গাছ কাটা ও বন উজাড়কে দায়ী করে। ডিসেম্বরে মাউন্ট মারাপির সাম্প্রতিক অগ্ন্যুৎপাতের ফলে ভয়াবহ বিস্ফোরণ হয়েছিল। যার দরুণ ২৪ জন পর্বতারোহীর মৃত্যু হয়েছে।