মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পরই বাজারে হানা দিল টাস্ক ফোর্স, সবজির দর নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগ

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন, ১০ দিনের মধ্যে সবজির দাম কমাতে হবেই। বাজার কমিটির সঙ্গে বৈঠকে বসে সবজির অগ্নিমূল্য নিয়ে এটাই ছিল তাঁর বড় হুঁশিয়ারি। আর তারপর আজ, বুধবার টাস্ক ফোর্সের প্রতিনিধিদল হানা দিল কাঁকুড়গাছি, মানিকতলা বাজার থেকে শুরু করে গড়িয়াহাট, লেক মার্কেটে। আর তাতেই থরহরিকম্প অবস্থা হল সকলের। আকাশছোঁয়া সবজির দাম নিয়ে পুলিশ প্রশাসনকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কালোবাজারি নিয়ে সতর্ক করেন মুনাফাখোরদের। আর ১০ দিনের মধ্যে সবজির দাম কমানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেটা কার্যকর করতেই উদ্যোগ শুরু।

একদিনে দাম কমে যাবে না এটা ঠিকই। তবে প্রতিনিয়ত প্রত্যেক বাজারে হানা দিলে আসল ছবিটা ধরা পড়বে। তাতেই দাম কমতে শুরু করবে। গৃহস্থরা বাজারে গিয়ে হাঁফ ছেড়ে বাঁচবেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের টাস্ক ফোর্সের সদস্য এবং কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের সদস্যরা কাঁকুড়গাছির ভিআইপি বাজার ঘুরে দেখেন। টাস্ক ফোর্সের সদস্য রবীন্দ্রনাথ কোলে সমস্ত সবজির দাম খোঁজখবর করেন। থলে হাতে সাত সকালে বাজারে গিয়ে নাভিশ্বাস উঠছে সাধারণ মানুষের। এটা থেকে রেহাই দিতেই কড়া নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। জেলার বাজারগুলিতেও দেখা গেল টাস্ক ফোর্স এবং রাজ্য পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের অফিসারদের। খুচরো ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে দাম জানতে চাইলেন।

আরও পড়ুন:‌ দুই আধিকারিকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ মেয়রের, বর্ষাতি কেলেঙ্কারি তুঙ্গে

কদিন আগে থেকেই শহর এবং জেলায় চড়তে শুরু করেছে সবজির দাম। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে আলু পেঁয়াজের দামও। লাগামছাড়া সেই দামে সবজি কিনতে গিয়ে রোজ হাত পুড়ছে মধ্যবিত্ত গৃহস্থের। এই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে সাধারণ মানুষ অভিযোগ জানান। তার প্রেক্ষিতেই শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রী বাজার কমিটিগুলির সঙ্গে বৈঠকে সবজি থেকে শুরু করে আলু পেঁয়াজের দর নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন। আড়ৎদার এবং ফড়েরাজের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে দ্রুত সবজির দাম নিয়ন্ত্রণে আনার নির্দেশ দেন। আর তারপরই টাস্ক ফোর্স কথা বললেন ক্রেতাদের সঙ্গেও। কলকাতার কাঁকুড়গাছির ভিআইপি মার্কেট থেকে আসানসোল দুর্গাপুর–সহ একাধিক জেলার বাজারে দেখা হানা দিলেন সদস্যরা।

এছাড়া কলকাতায় আজ বাজারে নামে টাস্ক ফোর্স এবং এনফোর্সমেন্ট বিভাগ। ওই বৈঠক থেকেই পরিস্থিতির জন্য মুখ্যমন্ত্রী সরাসরি জানিয়ে দেন, ‘‌কিছু মুনাফাখোরের জন্যই এই মূলবৃদ্ধি।’‌ তারপর ক্ষোভ উগরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌টাস্ক ফোর্স গঠন করেছিলাম। তারা শেষ কবে বৈঠকে বসেছে জানি না। যত দিন দাম না কমে, তত দিন বৈঠকে বসতে হবে। আমি মুখ্যসচিব, ডিজিকে নির্দেশ দিচ্ছি। কতটা দাম কমল, তা নিয়ে প্রত্যেক সপ্তাহে আমি রিপোর্ট চাই। ১০ দিনের মধ্যে দাম কমাতেই হবে।’‌ আজ শুরু ধরপাকড়।