‘‌সত্য সবসময়ই জয়ী হয়’‌, কেন্দ্রীয় এজেন্সির অপব্যবহার নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণে খুশি তৃণমূল

রাজ্য সরকার যে অভিযোগ তুলে মামলা করেছিল তাতে আজ মান্যতা দিল সুপ্রিম কোর্ট। কেন্দ্রীয় সরকার সিবিআইকে অপব্যবহার করছে অভিযোগ তুলে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে মামলা করেছিল রাজ্য সরকার। এবার সেই অভিযোগ সত্য বলেই মান্যতা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আজ, বুধবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি বিআর গাভাই এবং বিচারপতি কেভি বিশ্বনাথনের বেঞ্চের পর্যবেক্ষণ, কেন্দ্র যে সিবিআইয়ের অপব্যবহার করেছে সেটা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অভিযোগের গ্রহণযোগ্যতা আছে। এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস তাদের এক্স হ্যান্ডেলে বিষয়টি নিয়ে পোস্ট করেছেন। আর খোঁচা দিয়েছেন মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।

রাজ্যের যুক্তি সর্বোচ্চ আদালতে মান্যতা পেতেই ব্যাকফুটে গিয়েছে বিজেপি। এই নিয়ে কেউ কোনও কথা বলছেন না। তবে রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, ‘‌আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছিলাম, কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলিকে অব্যবহার করা হচ্ছে। আর সেটা যুক্তরাষ্ট্রিয় কাঠামোর পক্ষে বিপজ্জনক। অবশেষে দেশের সর্বোচ্চ আদালতও মেনেছে, যে এই বিষয়ে রাজ্যের যুক্তিগ্রাহ্যতা রয়েছে।’‌ সিবিআই রাজ্যে তদন্ত করার বিষয়ে এলে ‘জেনারেল কনসেন্ট’ চায় রাজ্য সরকারের কাছে। ২০১৮ সালে ঢালাও ছাড়পত্র প্রত্যাহার করে রাজ্য সরকার। রাজ্য সরকারের অভিযোগ, একের পর এক মামলায় রাজ্যের অনুমতি ছাড়াই এফআইআর করতে শুরু করে সিবিআই। এই অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে রাজ্য সরকার।

এই মামলার প্রেক্ষিতেই তিন বছর পর মান্যতা দিল সুপ্রিম কোর্ট। এই মামলার সওয়াল করেন আইনজীবী কপিল সিব্বল। সেখানেই সিবিআইয়ের অপব্যবহারের বিষয়টি তোলা হয়। তাতেই মান্যতা দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। আর তারপরই এক্স হ্যান্ডেলে বিষয়টি তুলে ধরে তৃণমূল কংগ্রেস। সেখানে লেখা হয়, ‘‌সত্য সবসময়ই জয়ী হয়। সুপ্রিম কোর্ট যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে শিক্ষা হওয়া উচিত, যারা নির্বাচিত রাজ্য সরকারকে নীচে নামাতে চায় কেন্দ্রীয় এজেন্সিকে ব্যবহার করে। আমাদের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় কোনও হুমকি মেনে নেওয়া হবে না। আরও একটা বিষয় পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে, রাজ্যের আইনশৃঙ্খলাতে কেউ হস্তক্ষেপ করতে পারবে না রাজনৈতিক স্বার্থে।’‌ এখন দেখার কেন্দ্রীয় এজেন্সির ভূমিকা কেমন হয়।

আরও পড়ুন:‌ বিজেপি প্রার্থীর মাকে ভোট দিতে সাহায্য করলেন তৃণমূল কাউন্সিলর, মানিকতলায় অন্য ছবি

এছাড়া গত ২৯ জুন ন্যাশনাল জুডিশিয়াল অ্যাকাডেমির পক্ষ থেকে কলকাতায় বিচার নিয়ে এক আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বলেছিলেন, বিচারব্যবস্থা যেন রাজনৈতিক পক্ষপাতদুষ্ট না হয়। তারপর এই মান্যতা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। সুপ্রিম কোর্টের এই পর্যবেক্ষণ নিয়ে চন্দ্রিমা বলেন, ‘‌বিচারব্যবস্থার নিরপেক্ষতা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে লাগাতার সওয়াল করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অবশেষে আদালতও এজেন্সির এক্তিয়ার নিয়ে রাজ্যের অভিযোগকে মান্যতা দিল।’‌