BJP worker: বিজেপি করার জন্য এবার চাষেও বাধা, TMC-র বিরুদ্ধে পদক্ষেপ চেয়ে অভিযোগ পুলিশে

লোকসভা ভোট মিটতেই বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি করার ‘অপরাধে’ দলের কর্মীদের সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে শাসক দলের বিরুদ্ধে। কোথাও রেশন থেকে, কোথাও পানীয় জল বা কোথাও অন্যান্য সরকারি পরিষেবা থেকে বিজেপি কর্মীদের বঞ্চিত করার একাধিক অভিযোগ সামনে এসেছে। আর এবার চাষের মরশুমে বিজেপি কর্মীদের কৃষিকাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। চাষের জন্য কোথাও ট্রাক্টর ভাড়া দেওয়া হচ্ছে তো কোথাও অন্যভাবে জমিতে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের চাষ করতে বাধা দেওয়া হচ্ছে বীরভূমের সিউড়ি ২ নম্বর ব্লকের একাধিক গ্রামে। এমনটাই অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। এই অবস্থায় সুরাহা চেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হলেন বিজেপির বীরভূম সাংগঠনিক জেলার সভাপতি ধ্রুব সাহা।

আরও পড়ুন: মহিলাকে কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগে বিজেপি কর্মীকে মারধর, ভাঙচুর করা হল দোকান

মঙ্গলবার বিজেপির বীরভূম সাংগঠনিক জেলার সভাপতি ধ্রুব সাহা জেলা পুলিশের আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করেন। পুলিশের কাছে তিনি অভিযোগ করেছেন, নির্বাচনের পর থেকেই সিউড়ি ২ নম্বর ব্লকের একাধিক গ্রামে সন্ত্রাস চলাচ্ছে তৃণমূল কর্মীরা। বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে থাকতে দিচ্ছে না। তাদের চাষ পর্যন্ত করতে দেওয়া হচ্ছে না। এমনকী জমি চাষের জন্য ট্রাক্টর ভাড়া দেওয়া হচ্ছে না বিজেপি কর্মীদের। তারা যাতে নিরাপদে তাদের বাড়িতে থাকতে পারে এবং চাষ করতে পারে তার ব্যবস্থা করার জন্য পুলিশের কাছে আর্জি জানিয়েছেন।

একই সঙ্গে ধ্রুব সাহা দাবি করেছেন, মল্লারপুরের পাথাই গ্রামে পুলিশকে মারধরের ঘটনার পর বিজেপি কর্মীদের বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। পাশপাশি সিভিক ভলেন্টিয়াররাও হুমকি দিচ্ছে তাদের। পুলিশ সুপারের দ্বারস্থ হয়ে তিনি অভিযোগ করছেন, মাস কয়েক আগে এখানে পুলিশকে মারধরের ঘটনা ঘটেছিল। কয়েকজন পুলিশ কর্মী আহত হয়েছিলেন। এই ঘটনার পর পুলিশ দোষী ব্যক্তিদের ধরতে না পেরে বেছে বেছে বিজেপি কর্মীদের টার্গেট করছে। তারফলে বাড়িতে থাকতে পারছেন না গ্রামের মানুষেরা। সিভিক ভলেন্টিয়াররা বাড়িতে গিয়ে ভাঙচুর, লুটপাট করে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে । 

পাশাপাশি তিনি এও জানাচ্ছেন যারা প্রকৃত দোষী যারা পুলিশকে মারধর করেছে তাদেরকে চিহ্নিত করুক পুলিশ। যদিও তৃণমূলের জেলা সহসভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় এনিয়ে ধ্রুব সাহাকে কটাক্ষ করেছেন।  তিনি বলেন, পুলিশ যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাচ্ছে তাদেরকেই গ্রেফতার করছে। তাছাড়া বিজেপি জোর কর কিছু মানুষকে নিজেদের দলের লোক সাজিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার করছে।