পুলিশের বেরিক্যাড ভেঙে সড়কে যাচ্ছেন কুবি শিক্ষার্থীরা

পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে সড়কে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষার্থীরা। বিকাল ৩টার দিকে ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করার উদ্দেশ্যে বেরিয়ে আসেন। ক্যাম্পাস সংলগ্ন কোটবাড়ি আনসার ক্যাম্প এলাকায় পৌঁছালে শিক্ষার্থীদের আটকে দেয় পুলিশ। শিক্ষার্থীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। একপর্যায়ে উত্তেজিত ছাত্রদের লক্ষ্য করে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও গুলি ছোড়ে। কুবি শিক্ষার্থীরাও পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

প্রায় এক ঘণ্টার বেশি সময় এ সংঘর্ষ স্থায়ী হয়। পরে মিছিল নিয়ে ছাত্ররা পুলিশকে ডিঙিয়ে সড়কের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা মহাসড়কের কুমিল্লার কোটবাড়ি এলাকা দখল করে নেন।

বেলা সাড়ে ৪টার দিকে মহাসড়কের দুই পাশের যান চলাচল একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। এদিকে বন্ধ মহাসড়কে ছাত্ররা বিভিন্ন ধরনের মিছিল গান ও কবিতা আবৃত্তিতে মেতে উঠেছেন।

শিক্ষার্থী ফারসিদ হোসেন জিসান বলেন, ‘শামীম হাসানিয়াদ, মেহেদী হাসান, সাব্বির আহমেদ, মেহেদী হাসান বলেন, ‘পুলিশ আমাদের বন্ধুদের ওপর বিনা কারণে হামলা করেছে। শিক্ষার্থীরা যখন ফিরে যাচ্ছিলেন তখনও মেরেছে। আমরা মহাসড়কে অবস্থান নিয়েছি। আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ফিরে যাবো না।’

এর আগে, কোটা সংস্কারের দাবিতে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে কুমিল্লা কোটবাড়িতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধের জন্য যাওয়ার পথে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বাধা দেয় পুলিশ। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল ছোড়ে। বিপরীতে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল মেরেছেন শিক্ষার্থীরা। সংঘর্ষে দুই সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন অনেকে।